বিজ্ঞানবাদিতার (sciencism) ভুল কোথায়?

বিজ্ঞানবাদিতার (sciencism) ভুল কোথায়?

বিজ্ঞান ও দর্শনের পদ্ধতিগত মৌলিক পার্থক্যকে বিজ্ঞানবাদীরা গুলিয়ে ফেলেন।

বস্তুবাদ, ভাববাদ, প্রকৃতিবাদ ও অপ্রকৃতিবাদের মতো হাজারো তত্ত্ব, মত, পথ ও (মত)বাদের মতো বিজ্ঞানবাদও একটা (মত)বাদ বটে।

বিজ্ঞানবাদীরা মনে করেন, মানব জ্ঞান মানেই বিজ্ঞান। বিজ্ঞানই সব প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে পারে। হয়তো পেরেছে, নয়তো পারবে।

যেসব প্রশ্নের উত্তর বিজ্ঞান দিতে পারার কোনো সম্ভাবনা নাই, তাদের দৃষ্টিতে সেসব হলো ভুল প্রশ্ন। অর্থাৎ ব্যাকরণগতভাবে সঠিক প্রশ্ন হলেও আদতে সেগুলো অর্থহীন প্রশ্ন।

মোটাদাগে, যে কোনো ধরনের why questionকে তারা অবান্তর প্রশ্ন মনে করে। যেমন, ‘নীল রংয়ের ঘ্রাণ কী?’ – একটা অর্থহীন প্রশ্ন। হোয়াই ফরমেটের কোয়েশ্চনগুলোকে তারা যথাসম্ভব এড়িয়ে চলে। অগত্যা তারা হোয়াই প্রশ্নকে how it works, এক কথায় পদ্ধতিগত বর্ণনা দিয়ে ‘উত্তর’ দিতে চায়। যেটি আদতে begging the question ফ্যালাসি বা অনুপপত্তি।

বৈজ্ঞানিক (scientist) হওয়া আর বিজ্ঞানবাদী (sciencist) হওয়া আলাদা ব্যাপার। বিজ্ঞানকে দিয়ে যারা দার্শনিক সমস্যা মোকাবিলা করেন তারা বিজ্ঞানের অপব্যবহার করেন। এবং দর্শনকে অবমূল্যায়ন করেন। এসব বিজ্ঞানবাদী দার্শনিকদের তাই আপনারা বলতে পারেন, কলাবরেটর ফিলোসফার বা দার্শনিক রাজাকার।

পাঠকের তেমন আগ্রহ দেখলে “events বা data, information, correlation, causation, reason ও explanation – মধ্যকার অন্তঃসম্পর্ক” নিয়ে পরবর্তীতে আলোচনা করার ইচ্ছা আছে।

বিজ্ঞানবাদিতার (sciencism) ভুল কোথায়?” শিরোনামের পোস্টটিতে ২টি মন্তব্য

  1. পাঠকের তেমন আগ্রহ দেখলে “events বা data, information, correlation, causation, reason ও explanation – মধ্যকার অন্তঃসম্পর্ক” নিয়ে পরবর্তীতে আলোচনা করার ইচ্ছা আছে।

    আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছি,তাড়াতাড়ি দেন!

  2. পাঠকের তেমন আগ্রহ দেখলে “events বা data, information, correlation, causation, reason ও explanation – মধ্যকার অন্তঃসম্পর্ক” নিয়ে পরবর্তীতে আলোচনা করার ইচ্ছা আছে।

    আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছি,তাড়াতাড়ি দেন!

আপনার মন্তব্য লিখুন

* চিহ্নিত ঘরগুলো পূরণ করা আবশ্যক। আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।