সত্যতা হলো বাস্তবতা

ভুল তখনই ‘ভূল’ হয়, যখন তা হয় অনিচ্ছাকৃতভাবে কৃত। ইচ্ছে করে ‘ভূল’ লেখা ভুল নয়, স্টাইল বলা যেতে পারে। কখনো যদি কেউ ভুল না করতো, তাহলে সাহিত্যের ভাষাগত অগ্রগতি থেমে যেত। ভুল কাম্য, তবে সেটা স্বেচ্ছাকৃত হতে হবে। এক্ষেত্রে এটি হবে পরিবর্তন বা প্রগতি। ভাষার বিবর্তন তথাকথিত ভুলের উপর দাঁড়িয়ে। ভুল-নির্ভুলের মাপকাঠি হলো সত্য আর মিথ্যার প্রভেদ। সত্য আর মিথ্যা অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত।

তাহলে সত্য কী/কি?

সত্য সংজ্ঞায়নের উপযুক্ত নয়। একে চেনা যায় দুটি বৈশিষ্ট্য দিয়ে–

১। যা সত্য তা সহজাত হবে। কমনসেন্স একে এলাউ করবে। তা যা-ই হোক না কেন।

২। সত্য হবে সামগ্রিক। সমগ্রের সাথে সংগতিপূর্ণ না হলে কোনো ‘সত্য’ সত্যিকারভাবে সত্য হতে পারে না। খণ্ডিত ‘সত্য’ আদৌ সত্য নয়। সত্য-অনুরূপ মিথ্যা।

সত্যতা হলো বাস্তবতা।

পোস্টটির সামহোয়্যারইন লিংক

আপনার মন্তব্য লিখুন

* চিহ্নিত ঘরগুলো পূরণ করা আবশ্যক। আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।