তথ্য জ্ঞানের উপাদান মাত্র। তথ্য স্বয়ং জ্ঞান নয়। তথ্যকে যথাযথভাবে প্রক্রিয়াকরণ ও সংযুক্ত করলেই কেবল জ্ঞান তৈরি হয়।

জ্ঞান সৃষ্টিতে খুঁটিনাটি তথ্য তথা অধিকতর পরিমাণের তথ্য মোটেও সহায়ক নয়। সামগ্রিক জ্ঞান তৈরি হয় অতি সহজ সব তথ্য বা অভিজ্ঞতা হতে। বলাবাহুল্য, যে জ্ঞানের সামগ্রিকতার ভিত্তি নাই, তা বাহুল্য জ্ঞান। অতএব, পরিত্যাজ্য।

তাই, কম পড়াশোনা করেন। বেশি বেশি চিন্তাভাবনা করেন।

সমালোচকের দৃষ্টিতে দেখাটা খারাপ নয় বটে। কিন্তু সমালোচক হওয়া খুবই খারাপ। ক্রিটিক হবেন না। ক্রিটিক্যাল হোন।

তথ্যের পিছনে ছুটবেন না। বিশেষ করে, আদর্শ ও মূল্যবোধ সংশ্লিষ্ট ব্যাপারগুলোতে।

বুঝার চেষ্টা করেন। না বুঝলে প্রশ্ন করতে দ্বিধা করার মানে হলো নিজেকে স্বেচ্ছাবেকুব হিসাবে অজান্তে স্বীকার করে নেয়া।

লেখাটির ফেসবুক লিংক

মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য

Abu Reza: জ্ঞানের সীমাহীন বিশাল পরিধির স্বার্থে বাহুল্য জ্ঞানের কিছুটা প্রয়োজন আছে বলে মনে হয়।

Mohammad Mozammel Hoque: জ্ঞান যত কম হবে অথচ রিয়েলাইজেশন হবে বেশি, সেই জ্ঞান হবে তত বেশি কার্যকরী ও উপকারী। অযথা জ্ঞানের পরিধি বাড়ানো মানে হচ্ছে জ্ঞানের উপযোগিতা বা ফোকাল পয়েন্টকে হারিয়ে ফেলা। এ ধরনের অপ্রয়োজনীয় জ্ঞানভাণ্ডার শেষ পর্যন্ত তথ্যের একটা বিপুল সমষ্টি ছাড়া আর কিছু হয় না।

Abu Reza: তাহলে গভীরতর গবেষণার সংজ্ঞাটা সংকীর্ণতায় আবদ্ধ হবে কিনা? কার্যকর ও অকার্যকর জ্ঞানের পার্থক্যটা কীভাবে বুঝা যাবে?

Mohammad Mozammel Hoque: তথ্য ও জ্ঞানের সীমানা পেরিয়ে আমাদেরকে এর ভিতরে যেতে হবে। যেখানে আমাদের গভীর অনুধাবন আমাদেরকে প্রজ্ঞার স্তরে নিয়ে যায়।

wisdom is the missing foundation of informative or pseudo-knowledge.

Abu Reza: কার্যকর ও অকার্যকর জ্ঞানের স্তর পেরিয়ে তো চূড়ান্তভাবে প্রজ্ঞার স্তরে যেতে হয়।

Mohammad Mozammel Hoque: অপ্রয়োজনীয় তথ্যের সমাহার হচ্ছে অকার্যকর জ্ঞান। স্থান-কাল-পাত্র বিবেচনায় যেটা সংশ্লিষ্ট নয় সেটাই হচ্ছে অপ্রয়োজনীয়। যদিও অবজেক্টিভলি সব ইনফরমেশন হচ্ছে প্রয়োজনীয়। সব ইনফরমেশন সবার জন্য সব সময়ে বা সব প্রেক্ষাপটে প্রয়োজনীয় বা উপযোগী নয়। প্রয়োজনীয় তথ্যের ঘাটতি যেমন জ্ঞানকে ত্রুটিপূর্ণ করে, অপ্রয়োজনীয় তথ্যের সংযুক্তি তেমনি জ্ঞানকে কলুষিত করে।

সেই জন্য কোন সময়ে কী দরকার সেটা বুঝতে পারাটা খুব জরুরী।

জ্ঞানের উপাদান হলো তথ্য, কারিগর হলো যুক্তি, জ্ঞাতা হলো ব্যক্তি।

Abu Reza: আমার ভুল হলে আমাকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। জ্ঞানগর্ভ আলোচনার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Mohammad Mozammel Hoque: ইন্নালিল্লাহ, এমন কী কথা বললেন! আপনার ভুল হবে কেন? বরং আমরা এ বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করলাম মাত্র।

Mir Mumin: জ্ঞানের সহজবোধ্য সংজ্ঞাটি তাহলে কী দাঁড়ায়, স্যার?

Mohammad Mozammel Hoque: আমাদের ডিপার্টমেন্টের তৃতীয় বর্ষে সমকালীন জ্ঞানতত্ত্ব কোর্সে একটা টেক্সট পড়ানো হয় বহু বছর থেকে। এর নাম হচ্ছে, theory of knowledge। আর এর শেষ চ্যাপ্টারের শিরোনাম হচ্ছে ‘What is Knowledge?’

তারমানে জ্ঞানের কোনো সর্বজন স্বীকৃত সংজ্ঞা নাই। তবে যে প্রচলিত সংজ্ঞাটা সাধারণত বলা হয় সেটি হলো: Knowledge is justified true belief.

নিছক যাচাইকৃত সত্য বিশ্বাস হলেই যে জ্ঞান হবে, তা নয়। এটি দেখিয়ে দিয়েছেন Edmund L Gettier তাঁর ‘is justified true belief knowledge?’ শীর্ষক আর্টিকেলে। ১৯৬৩ সালে এই প্রবন্ধটি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে আড়াই হাজার বছর ধরে প্রচলিত জ্ঞানের JTB=K এই সংজ্ঞাটা হুমকির মুখে পড়ে। আজ পর্যন্ত জ্ঞানের সর্বজনস্বীকৃত কোনো সংজ্ঞা গৃহীত হয়নি।

তারমানে, জ্ঞান কী, সেটা আমরা জানলেও সেটাকে আমরা যথার্থভাবে ভাষা দিয়ে সংজ্ঞায়িত করতে পারি নাই। যেভাবে আমরা পারি নাই আমাদের আত্মসত্তাকে সংজ্ঞায়িত করার কাজটি সম্পন্ন করতে। অথচ আমরা আছি; এবং আমরা ঠিকই জানি, ‘আমি’ বা ‘আমরা’ বলতে আসলে আমরা কী বুঝাই বা বোঝাচ্ছি।

Mohammad Mozammel Hoque: ‘অনেক বেশি জানতে হবে’ এই ধরনের কথা যখন বলা হয় তখন সাধারণত মিন করা হয়, অনেক বেশি তথ্য সংগ্রহ করতে হবে।

আসলে অনেক বেশি তথ্য সংগ্রহ করা জ্ঞান নয়। তাছাড়া, অনেক বেশি জানার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো অনেক অনেক বেশি করে ভাবনা চিন্তা করা; এবং যা আমরা জানি তা খুব বেশি করে অনুধাবন করা।

তা না করে অনেক অনেক চমকপ্রদ তথ্য সংগ্রহ করা হলো এক ধরনের স্নায়ুবিক ব্যায়ামের মতো ব্যাপার। এটি একটি রোবটিক ফাংশন। মানবিক জ্ঞান মানুষের আন্ডারস্ট্যান্ডিং এর সাথে অধিকতর সামঞ্জস্যপূর্ণ। নিছক তথ্যের সমাবেশ আমাদেরকে কখনো জ্ঞান দিতে পারে না, যতক্ষণ না আমরা সঠিক তথ্যের সংযোগ সাধনের সক্ষমতা অর্জন করি।

Badshah FaHad Ali Khan: ভাবতে হলে, চিন্তা করতে হলে, গভীরে যেতে হলেও তো তথ্যের প্রয়োজন। তাই তো পড়তে হবে। না পড়লে সে বিষয় সম্পর্কে অনুধাবন আসবে কীভাবে? তাহলে তো কোরআনের প্রথম শব্দটা ‌‘পড়ো’ না হয়ে ‌‘ভাবো’ হতে পারতো

Mohammad Mozammel Hoque: তথ্য তো লাগবেই। কিন্তু গভীর চিন্তাভাবনা ছাড়া, উপযুক্ত পদ্ধতিতে উপযুক্ত তথ্যের যথার্থ ব্যবহার ছাড়া, তথ্যের উপযুক্ত সংযোগ ছাড়া, নিছক তথ্যের সমাবেশ আমাদেরকে কোনো জ্ঞান দেয় না।

মন্তব্য-প্রতিমন্তব্যের লিংক

আপনার মন্তব্য লিখুন

অনুগ্রহপূর্বক আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহপূর্বক এখানে আপনার নাম লিখুন